রোববার ১৬ জুন ২০২৪ ২ আষাঢ় ১৪৩১
 

নাফ নদী থেকে সরিয়ে নিয়েছে মিয়ানমারের যুদ্ধজাহাজ    জাপানে ভয়ঙ্কর ব্যাকটেরিয়ার থাবা, ৪৮ ঘণ্টার মধ্যেই মৃত্যু    দ্বিতীয় সর্বোচ্চ টোল আদায়ের রেকর্ড পদ্মা সেতুতে     গাজীপুরে শ্রমিক অসন্তোষ, বেতনের দাবিতে মহাসড়ক অবরোধ    সেন্টমার্টিন আক্রান্ত হলে ছেড়ে দেব না: কাদের    সেন্টমার্টিন নিয়ে সরকারের নীরবতা দাসসুলভ আচরণ: ফখরুল    বৃক্ষরোপণের আহ্বান জানালেন প্রধানমন্ত্রী   
আইনের অপব্যবহার বিদেশি বিনিয়োগে বাধা হতে পারে: মিলার
অনলাইন ডেস্ক:
প্রকাশ: বুধবার, ৫ জুন, ২০২৪, ৫:৩৭ অপরাহ্ন

নোবেলজয়ী ড. মুহাম্মদ ইউনূসের বিরুদ্ধে মানি লন্ডারিং প্রতিরোধ আইনে ঢাকার আদালতে চলা মামলার প্রসঙ্গটি উঠে এসেছে যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের নিয়মিত ব্রিফিংয়ে। ওয়াশিংটনের স্থানীয় সময় গতকাল মঙ্গলবার ব্রিফিংয়ে মার্কিন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র ম্যাথু মিলার এ বিষয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাব দেন।  
মিলার বলেন, শ্রম ও দুর্নীতিবিরোধী আইনের অপব্যবহার বাংলাদেশে বিদেশি বিনিয়োগের ক্ষেত্রে বাধা হয়ে দাঁড়াতে পারে।

গত রোববার ঢাকার আদালতে হাজিরা দেন ড. মুহাম্মদ ইউনূস। ওই সময় এজলাসকক্ষে আসামিদের জন্য তৈরি লোহার খাঁচায় (আসামির কাঠগড়া) দাঁড়াতে হয় এই নোবেল বিজয়ীকে। এই অভিজ্ঞতাকে ‘অভিশপ্ত জীবনের শীর্ষবিন্দুতে পৌঁছে যাওয়া’ হিসেবে বর্ণনা করেন তিনি।

এই প্রসঙ্গ টেনে ব্রিফিংয়ে মিলারকে প্রশ্ন করা হয়। একজন সাংবাদিক প্রশ্ন করে বলেন, নোবেলজয়ী অধ্যাপক ড. ইউনূসকে রোববার আদালতকক্ষে লোহার খাঁচায় ঢুকতে হয়েছিল। বেরিয়ে তিনি বলেছেন, ‘এটা তাঁর অভিশপ্ত জীবনের শীর্ষবিন্দুতে পৌঁছে যাওয়া’। একইভাবে গণতন্ত্র, আইনের শাসন ও সীমাহীন দুর্নীতির কারণে লাখো বাংলাদেশিও তাঁদের অভিশপ্ত জীবনের শীর্ষবিন্দুতে পৌঁছেছেন।

ওই সাংবাদিক প্রশ্ন করেন, ‘আমরা আগেও দেখেছি, বাংলাদেশের সাবেক সেনাপ্রধান ও পুলিশপ্রধানের বিরুদ্ধে কিছু নিষেধাজ্ঞা ও ভিসা বিধিনিষেধ আরোপ করেছে যুক্তরাষ্ট্র। আপনি কি মনে করেন, গত ৭ জানুয়ারির বিতর্কিত নির্বাচন–পরবর্তী সময়ে ক্ষমতাসীনদের দায়বদ্ধতা নিশ্চিত করতে এটা যথেষ্ট? নাকি বাংলাদেশের গণতন্ত্রপ্রেমী মানুষের পাশে দাঁড়াতে প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী আরও কোনো ব্যবস্থা নেওয়ার কথা আপনারা চিন্তাভাবনা করছেন?

জবাবে মিলার বলেন, ‘ড. ইউনূসের বিরুদ্ধে চলমান মামলার অগ্রগতি গভীরভাবে পর্যবেক্ষণ করছে যুক্তরাষ্ট্র। আমরা আগেও উদ্বেগ জানিয়ে বলেছি, এই মামলায় বাংলাদেশের শ্রম আইনের অপব্যবহার করা হচ্ছে। ড. ইউনূসকে হয়রানি করতে আর ভয় দেখাতে এমনটা করা হচ্ছে।’

সতর্ক করে মার্কিন পররাষ্ট্র মন্ত্রাণালয়ের মুখপাত্র মিলার বলেন, এভাবে শ্রম ও দুর্নীতিবিরোধী আইনের অপব্যবহার চলতে থাকলে বাংলাদেশে আইনের শাসন নিয়ে প্রশ্ন উঠতে পারে। বিদেশি বিনিয়োগ বাধাগ্রস্ত হতে পারে। এই বিষয়ে উদ্বেগ রয়েছে।

মিলার বলেন, ‘ড. ইউনূসের আপিল প্রক্রিয়া চলমান। তাই তাঁর জন্য একটি ন্যায্য ও স্বচ্ছ আইনি প্রক্রিয়া নিশ্চিত করতে আমরা বাংলাদেশ সরকারকে উৎসাহ দিয়ে যাচ্ছি। কিন্তু এমন কোনো দৃশ্যমান পদক্ষেপ দেখছি না।’

ব্রিফিংয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার একটি অভিযোগের বিষয়ে মিলারের দৃষ্টি আকর্ষণ করা হয়। একজন সাংবাদিক বলেন, সম্প্রতি শেখ হাসিনা অভিযোগ করে বলেছিলেন, একজন শ্বেতাঙ্গ তাঁকে (শেখ হাসিনা) বলেন, বিদেশি একটি রাষ্ট্রকে বিমানঘাঁটি বানানোর অনুমতি দিলে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কোনো ধরনের চাপ ছাড়াই রাষ্ট্রক্ষমতায় থাকতে পারবেন।’

ওই সাংবাদিক আরও বলেন, শেখ হাসিনার অভিযোগ, পূর্ব তিমুরের মতো বাংলাদেশ ও মিয়ানমারের ভূখণ্ডে একটি খ্রিষ্টান রাষ্ট্র বানানোর ষড়যন্ত্র চলছে। সেই সঙ্গে বঙ্গোপসাগরে একটি বিমানঘাঁটি গড়ার চেষ্টা চলছে। শেখ হাসিনা কি যুক্তরাষ্ট্রের দিকে এমন তীর ছুড়েছেন?

জবাবে মিলার বলেন, ‘ওই মন্তব্য কার উদ্দেশে করা হয়েছে, সেটা আমি নিশ্চিত নই। যদি এসব যুক্তরাষ্ট্রকে বলা হয়ে থাকে, তাহলে আমি একটি কথাই বলব, এটা সঠিক নয়।’

« পূর্ববর্তী সংবাদপরবর্তী সংবাদ »







  সর্বশেষ সংবাদ  
  সর্বাধিক পঠিত  
এই ক্যাটেগরির আরো সংবাদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: মো. আক্তার হোসেন রিন্টু
বার্তা ও বাণিজ্যিক বিভাগ : প্রকাশক কর্তৃক ৮২, শহীদ সাংবাদিক সেলিনা পারভীন সড়ক (৩য় তলা) ওয়্যারলেস মোড়, বড় মগবাজার, ঢাকা-১২১৭।
বার্তা বিভাগ : +8802-58316172. বাণিজ্যিক বিভাগ : +8801868-173008, E-mail: dailyjobabdihi@gmail.com
কপিরাইট © দৈনিক জবাবদিহি সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত | Developed By: i2soft