শনিবার ১৩ আগস্ট ২০২২ ২৯ শ্রাবণ ১৪২৯
 

বঙ্গবন্ধু হত্যার যড়যন্ত্রকারীদের খুঁজতে এ বছরই কমিশন গঠন: আইনমন্ত্রী    সালমান রুশদির হামলাকারীর পরিচয় প্রকাশ    আগামিকাল ঢাকায় আসছেন জাতিসংঘ মানবাধিকার প্রধান     ডিমের হাফ সেঞ্চুরি পার    সালমান রুশদি ভেন্টিলেটরে    ট্রাম্পের বাসভবন থেকে ১১ সেট গোপন নথি উদ্ধার    বিশ্বে করোনায় মৃত্যু ১৯৪৮ জন, শনাক্ত প্রায় সাড়ে ৭ লাখ    
প্রক্সির মাধ্যমে ভর্তি পরীক্ষায় প্রথম হওয়া সেই শিক্ষার্থীর ফল বাতিল
প্রকাশ: বুধবার, ৩ আগস্ট, ২০২২, ১:৩৩ অপরাহ্ন

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের ‘এ’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষায় দ্বিতীয় শিফটে প্রথম হওয়া তানভীর আহমেদের ফল বাতিল করা হয়েছে। আজ বুধবার (৩ আগস্ট) দুপুরে বিশ্ববিদ্যালয়ের জনসংযোগ দফতর থেকে পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়। 

তানভীর আহমেদের পরিবর্তে পরীক্ষায় অংশ নেন বায়েজিদ নামে এক শিক্ষার্থী। পরীক্ষা চলাকালে তিনি আটক হন। পরে ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে তাকে এক বছরের কারাদণ্ড দেওয়া হয়। কিন্তু মঙ্গলবার (২ আগস্ট) রাতে প্রকাশিত ‘এ’ ইউনিটের পরীক্ষার ফলাফলে দেখা যায়, তানভীর ৯২ দশমিক ৭৫ পেয়ে ওই শিফটে প্রথম হয়েছেন। এই গণমাধ্যমে সংবাদ প্রকাশ হয়। পরে দুপুর ফল বাতিল করা হয়েছে।

‘এ’ ইউনিটের পরীক্ষা কমিটির সমন্বয়ক ও সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদের ডিন অধ্যাপক ইলিয়াস হোসেন বলেন, ‘তার ফল বাতিল করা হয়েছে। ওএমআর শিটে কোনও সুপারিশ ছিল না। ফ্রেশ খাতা হিসেবে এসেছে, সেটা মূল্যায়ন করে ফল প্রকাশ করা হয়েছিল।’

তিনি আরও বলেন, ‘পরীক্ষা চলাকালীন কাউকে সন্দেহ হলে ওএমআর শিট আলাদা রাখতে হয়। বায়েজিদ খানকে (তানভীরের হয়ে পরীক্ষাদাতা) পরীক্ষা চলাকালীন সন্দেহভাজন হিসেবে আটক করা হয়। তিনি প্রক্সি দিয়েছেন প্রমাণ পেয়ে মামলা-জেল দেওয়া হলো। এগুলোর পরও তার ওএমআর আলাদা হয়নি। প্রক্টর দফতর থেকেও আমাদেরকে জানানো হয়নি এই রোল নম্বরধারীর হয়ে প্রক্সি দেওয়ায় একজনকে জেলে পাঠানো হয়েছে। ফ্রেশ ওএমআর এসেছে, মূল্যায়ন করে ফল ঘোষণা করা হয়েছিল। এখন সেটা বাতিল করা হয়েছে।’

এদেকে তানভীর আহমেদের হয়ে প্রক্সি দিতে এসে আটক হয়েছিলেন বায়েজিদ। এরপরও ওই ওএমআর বাতিল না হওয়ায় পরীক্ষকের দায় দেখছে ভর্তি উপকমিটি। এজন্য দায়িত্ব অবহেলার কারণে পরীক্ষককে তলব করা হবে বলে জানিয়েছেন ভর্তি পরীক্ষা উপ কমিটির সভাপতি ও উপ-উপাচার্য অধ্যাপক সুলতান-উল-ইসলাম।

তিনি বলেন, ‘ওই পরীক্ষার্থীর ফল বাতিল করা হয়েছে। পরীক্ষার হলে আটক হওয়ার পরই ওই কক্ষের পরীক্ষক তার খাতা বাতিলের সুপারিশ করবেন এটাই স্বাভাবিক। ওএমআরে কোনও সুপারিশ নেই। এটেনডেন্সে সুপারিশ আছে কি-না জানা নেই। বিষয়টি খোঁজ নেওয়া হচ্ছে। এখানে পরীক্ষকের দায় অবশ্যই রয়েছে। পরীক্ষক দায়িত্ব অবহেলার দায় এড়াতে পারেন না। তার কাছে এ ঘটনার ব্যাখ্যা চাওয়া হবে।’


-জ/আ

« পূর্ববর্তী সংবাদপরবর্তী সংবাদ »







  সর্বশেষ সংবাদ  
  সর্বাধিক পঠিত  
এই ক্যাটেগরির আরো সংবাদ
সম্পাদক ও প্রকাশক : আক্তার হোসেন রিন্টু
বার্তা ও বাণিজ্যিক বিভাগ : প্রকাশক কর্তৃক ৮২, শহীদ সাংবাদিক সেলিনা পারভীন সড়ক (৩য় তলা) ওয়্যারলেস মোড়, বড় মগবাজার, ঢাকা-১২১৭
বার্তা বিভাগ : +8802-58316172, বাণিজ্যিক বিভাগ : +8802-58316175,+8801711443328, E-mail: [email protected], [email protected]
কপিরাইট © দৈনিক জবাবদিহি সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত | Developed By: i2soft