শুক্রবার, ২২ অক্টোবর ২০২১, ০১:০৫ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
অসুস্থ গাফফার চৌধুরীকে ফোন করে খোঁজ-খবর নিলেন রাষ্ট্রপতি স্কটল্যান্ড হারলে গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন বাংলাদেশ কক্ষপথে স্যাটেলাইট স্থাপনে ব্যর্থ হয়েছে দ. কোরিয়া স্কুল শিক্ষার্থীদের টিকা এ মাসেই: স্বাস্থ্যমন্ত্রী বন্ধ হচ্ছে না বৈধ-অবৈধ মোবাইল ফোন মালয়েশিয়ায় বাংলাদেশিসহ ২১৩ অভিবাসী আটক হিন্দুদের ওপর হামলা দেশের চেতনার বেদীমূলে হামলা : তথ্যমন্ত্রী জানুয়ারিতে বাড়তে পারে ক্লাসের সংখ্যা: শিক্ষামন্ত্রী ব্যাট-বলের ভারসাম্যে খুশী মাহমুদুল্লাহ ধামইরহাটে উপজেলা আওয়ামীলীগের সম্মেলনে পুনরায় দেলদার হোসেন সভাপতি ও সম্পাদক শহীদুল ইসলাম বিশাল জয়ে বিশ্বকাপের মূল পর্বে টাইগাররা ‘বিএনপি নেতারা রাজনীতি নয়, অফিসিয়াল দায়িত্ব পালন করছেন’ গোয়ালন্দ উপজেলা বিএনপির আহবায়ক কমিটি গঠন মালিঙ্গাকে ছাড়িয়ে আফ্রিদিকে ধরে ফেললেন সাকিব রাডার কিনতে ফ্রান্সের সঙ্গে চুক্তি সই করোনায় ২৪ ঘণ্টায় বেড়েছে মৃত্যু, কমেছে শনাক্ত ঠাকুরগাঁওয়ে বাল্যবিবাহের অপরাধে ইউপি চেয়ারম্যান ও কাজি সহ আটক ০৯ কখনও বলিনি বিশ্বকাপ জিতে বিয়ে করব: রশিদ খান নারী ও শিশু উন্নয়ন বিষয়ক সাংবাদিক প্রশিক্ষণ কর্মশালার সমাপন ধামইরহাটে বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুস সামাদ মন্ডলকে রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় দাফন

হোয়াটসঅ্যাপে বার্তা পাঠিয়ে কাঠগড়ায় ব্রিটিশ সরকার

রিপোর্টারের নাম
প্রকাশের সময় : শুক্রবার, ২২ অক্টোবর ২০২১, ০১:০৫ অপরাহ্ন
হোয়াটসঅ্যাপে বার্তা পাঠিয়ে কাঠগড়ায় ব্রিটিশ সরকার

হোয়াটসঅ্যাপের মাধ্যমে তাৎক্ষণিক বার্তা পাঠানোর বিষয়ে হাইকোর্টের চ্যালেঞ্জের মুখে পড়েছে ব্রিটিশ সরকার। কর্তৃপক্ষের নির্দেশ অনুযায়ী, ব্রিটিশ মন্ত্রীদের এ ধরণের তাৎক্ষণিক বার্তালাপ মুছে ফেলার অনুমতি রয়েছে।

ব্রিটিশ বার্তা সংস্থা বিবিসির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, কর্তৃপক্ষের ওই অনুমতির বিরুদ্ধেই আদালতে গেছেন স্বচ্ছতা প্রচারকারীরা। তাদের দাবি, এটি বেআইনি। এমন নিয়ম অবশ্যই বিচারিক পর্যালোচনার মাধ্যমে নিশ্চিত করা উচিৎ।

সরকারি ব্যাপারে আলোচনার জন্য মন্ত্রীদের হোয়াটসঅ্যাপ এবং ব্যক্তিগত ইমেইল ব্যবহার নিষিদ্ধ। কিন্তু কোনো নিয়মই স্পষ্টভাবে অনুসরণ করা হচ্ছে না বলে দাবি করেছেন স্বচ্ছতা প্রচারকারী আইনগোষ্ঠী ফক্সগ্লোভের পরিচালক কোরি ক্রাইডার।

বিবিসি নিউজকে তিনি বলেন, এমন বিষয়ে আদালতে যাওয়ার ঘটনা এটিই প্রথম। এর ফলে আধুনিক প্রযুক্তিনির্ভর সরকারকে আরও স্বচ্ছ এবং জনবান্ধব করবে। এভাবে সব প্রমাণাদি যদি বাতাসে অদৃশ্য হয়ে যায় তবে আমরা ইতিহাস থেকে শিক্ষা নিতে পারব না।

স্বচ্ছতা প্রচারকারী আইনি এই গোষ্ঠীটির দাবি, হোয়াটসঅ্যাপের মতো মেসেজিং সিস্টেম ব্যবহারের পর বার্তা মুছে ফেলার অনুমতি দেয়া হয়েছে যা ১৯৫৮ সালের পাবলিক রেকর্ডস আইন লঙ্ঘন করে। ভবিষ্যৎ আইনি পরীক্ষা এবং জনস্বার্থের জন্য বার্তাগুলো রাখা প্রয়োজন।

সংস্থাটির এমন দাবির পরিপ্রেক্ষিতে আদালত হোয়াটসঅ্যাপের মাধ্যমে সরকারি বার্তালাপ বিষয়ে পর্যালোচনার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এদিকে লেবার পার্টির নেতা অ্যঙ্গেলা রেইনার বার্তা মুছে ফেলা অগণতান্ত্রিক, অস্বচ্ছ এবং দায়িত্বহীন দাবি করে সংস্থাটির পক্ষ নিয়েছেন।


অন্যান্য সংবাদ
%d bloggers like this:
%d bloggers like this: