সোমবার, ২৫ অক্টোবর ২০২১, ১০:৫৭ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
অবশেষে এসপি’র হস্তক্ষেপে থানায় মামলা! যশোরে চোরাই ইজিবাইকসহ আটক ৪ স্বাধীনতাবিরোধী চক্রই দেশের সাম্প্রদায়িক হামলার জন্য দায়ী: ইনু মানিকগঞ্জে জাতীয় স্যানিটেশন মাস ও বিশ্ব হাত ধোয়া দিবস উদযাপন চকরিয়ায় পরোয়ানাভুক্ত আসামী গ্রেফতার ডিমলায় নিখোঁজের পাঁচদিন পর তিস্তা নদী থেকে এক ব্যক্তির লাশ উদ্ধার সাম্প্রদায়িক হামলা চালিয়ে রাজনৈতিক ফায়দার চেষ্টা বিএনপি’রঃ নানক বাংলাদেশকে ৫০০ মিলিয়ন ইয়েন অনুদান দিচ্ছে জাপান এ মাসে প্রবাসী আয় ১০০ কোটি ডলার ছাড়ালো জয় বাংলা ইয়ুথ এ্যাওয়ার্ডের আবেদনের সময় বাড়লো ভোলাহাটে ভেজাল আইসক্রীম কারখানায় র‌্যাবের অভিযান ৫৯ বিজিবি’র শিয়ালমারা সীমান্তে অভিযান ॥ ফেন্সিডিলসহ আটক ১ ২৪ ঘন্টায় ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে নতুন ১৯০ জন রোগী ভর্তি অপারেশন শেষে আইসিইউতে খালেদা জিয়া উমরাহ পালনে আর ১৪ দিনের অপেক্ষা নয় ভারতের কেরালা রাজ্যে বন্যায় প্রাণহানিতে মোমেনের শোক বহিস্কৃত নেতাকে মনোনয়ন দেয়ার প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন বিদ্যুৎ সম্পর্কিত সব মামলা দ্রুত নিষ্পত্তির সুপারিশ রৌমারীতে সার সংকটে কৃষক বিপাকে মেলান্দহে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত-১, আহত ২

বাগাতিপাড়ায় ওএমএস এর আটা-চাল কিনতে দীর্ঘ লাইন

বাগাতিপাড়া (নাটোর) প্রতিনিধি
প্রকাশের সময় : সোমবার, ২৫ অক্টোবর ২০২১, ১০:৫৭ অপরাহ্ন
বাগাতিপাড়ায় ওএমএস এর আটা-চাল কিনতে দীর্ঘ লাইন

বাজারের তুলনায় দাম বেশি হওয়ায় নাটোরের বাগাতিপাড়ায় চাল ও আটা কিনতে খাদ্য অধিদপ্তরের ন্যায্যমূল্যের দোকানগুলোতে দীর্ঘ লাইন দেখা গিয়েছে। সপ্তাহের ৬ দিন পৌর এলাকার নিম্নআয়ের মানুষরা ৩টি পয়েন্ট থেকে ন্যায্যমূল্যের এই চাল ও আটা কিনছেন।
উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রকের কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, সরকার গত ২৫ জুলাই থেকে খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে উপজেলার পৌর এলাকার ৫টি ডিলারের মাধ্যমে ৩টি পয়েন্টে একযোগে খোলা বাজারে (ওএমএস) চাল ও আটা বিক্রি কার্যক্রম শুরু করেছেন। এই দোকানগুলো থেকে যে কেউ পাঁচ কেজি চাল অথবা আটা কিনতে পারবেন। আর সপ্তাহের ৬ দিন এই কর্মসূচির আওতায় প্রতি ডিলারকে ১ হাজার ৫০০ কেজি চাল এবং ১ হাজার কেজি আটা বরাদ্দ দেওয়া হয়। প্রতি কেজি চাল ৩০ টাকা এবং আটা ১৮ টাকা হারে বিক্রি করা হচ্ছে।
মালঞ্চি বাজারের ওএমএস ডিলার এনামুল হক বলেন, বাজারে বাড়তি দামে চাল ও আটা কিনতে নাভিশ্বাস উঠেছে নিম্নআয়ের মানুষদের। তাই ন্যায্যমূল্যের এই চাল ও আটার চাহিদা বরাদ্দের কয়েকগুণ বেশী হওয়ায় চাপ সামাল দেওয়া কঠিন হয়ে পড়ছে। এজন্য বরাদ্দ বাড়ানো জরুরি বলে মনে করেন তিনি।
ঘোরলাজ এলাকার মোঃ কাফি বলেন, এখানে অনেক কম দামে চাল ও আটা পাওয়া যাচ্ছে। বাজারে চালের দাম অনেক বেশী। তাই চাল কেনার জন্য লাইনে দাঁড়িয়ে আছি।
যোগিপাড়া গ্রামের ভ্যান চালক আতাউল ইসলাম বলেন, বাজারের তুলনায় ন্যায্যমূল্যের দোকানে চাল ও আটা দাম অনেক কম হওয়ায় লাইনে দাঁড়িয়ে থাকার পরেও চাল পেয়ে খুশি তিনি ।
উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক রেজাউল করিম বলেন, উপজেলার পৌর এলাকায় ৩টি পয়েন্টে সাড়ে ৪ হাজার কেজি চাল এবং ৩ হাজার কেজি আটা বরাদ্দ দেওয়া হয়। পরবর্তি নির্দেশনা না পাওয়া পর্যন্ত এই কার্যক্রম চলমান থাকবে।


অন্যান্য সংবাদ
%d bloggers like this:
%d bloggers like this: