মঙ্গলবার, ১৯ অক্টোবর ২০২১, ০৭:৪০ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
গৌরীপুরে উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে শেখ রাসেল দিবস পালিত হবিগঞ্জে শেখ রাসেল-এর ৫৮তম জন্মদিন উদযাপন সাম্প্রদায়িক অপতৎপরতা রুখতে মাঠে নামছে আ. লীগ ফেনীর নতুন পুলিশ সুপার আবদুল্লাহ আল মামুন হিজবুল্লাহর ভয়ে যুদ্ধে জড়াবে না ইসরায়েল পদোন্নতি পেলেন ডিএমপি কমিশনার ও র‍্যাব মহাপরিচালক শেখ রাসেলের ৫৮তম জন্মদিন উদযাপিত করোনায় কমেছে মৃত্যু, বেড়েছে শনাক্ত ২১ অক্টোবর শুরু হচ্ছে সাত কলেজের সশরীরে ক্লাস ‘কুমিল্লার ঘটনা সাজানো, সরকারকে বেকায়দায় ফেলতে পীরগঞ্জে হামলা’ ‘বুলেটের আঘাতে যেন আর কোন শিশুর প্রাণ না যায়’ জাপানে শেখ রাসেলের ৫৮তম জন্মদিন উদযাপিত কেরালায় ভয়াবহ বন্যায় মৃত্যু বাড়ছে দলের সংগে পাপনের জরুরি সভা, ঝাড়লেন রাগ রংপুর-ফেনীর এসপিসহ কয়েকজন পুলিশ কর্মকর্তা বদলি কিউকমের আরজে নিরব ও রিপন ফের রিমান্ডে সরকারকে প্রশ্নবিদ্ধ করতেই পীরগঞ্জে হামলা : তথ্যমন্ত্রী ‘শেখ রাসেল স্বর্ণ পদক’ বিতরণ করলেন প্রধানমন্ত্রী নেই কোনো নদী শাসন ব্যবস্থা বেতন আর মেয়াদ দুটোই বাড়তে যাচ্ছে ডোমিঙ্গোর

তিস্তা নদী ভাঙ্গন যেন থামছেই না

রাজারহাট(কুড়িগ্রাম)প্রতিনিধি
প্রকাশের সময় : মঙ্গলবার, ১৯ অক্টোবর ২০২১, ০৭:৪০ পূর্বাহ্ন
তিস্তা নদী ভাঙ্গন যেন থামছেই না

আমরা রিলিফ চাই না, তিস্তার ভাঙ্গন প্রতিরোধে স্থায়ী সমাধান চাই। এই কথা গুলো বলেন কুড়িগ্রাম জেলার রাজারহাট উপজেলার ঘড়িয়াল ডাঙ্গা ইউনিয়নের চর গতিয়াশাম গ্রামের আলেফ আলী (৭০)। তিনি আরও বলেন ২ সপ্তাহের ব্যবধানে আমার ৮ একর আবাদি জমি নদীতে ভেঙ্গেগেছে। এখন বাড়ি,ভিটায় ভাঙ্গন ধরেছে। পরিবার, পরিজন, গরু ছাগল নিয়া কোথায় যাব ভেবে পাচ্ছিনা। উপজেলার ঘড়িয়াল ডাঙ্গা ইউনিয়নের চর গতিয়াশাম , খিতাব খাঁ,বড়দরগাহ্, বিদ্যানন্দ ইউনিয়নের ০৬ টি গ্রমের প্রায় পাঁচ শতাধিক পরিবার তিস্তা নদীর ভাঙ্গনের শিকার হয়েছেন। নদী গর্ভে বিলিন হয়েছে বসত বাড়ি, আবাদি জমি, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, মসজিদ, ব্রীজ, কালভার্ট। এমন কি মাননীয় প্রধানমন্ত্রির উপহারের প্রায় ২৫টি পরিবার সহ প্রায় ১০টি প্রাথমিক বিদ্যালয়,মসজিদ ও হাট বাজার। কুড়িগ্রামের পানি উন্নয়ন বোর্ড জিও ব্যাগ, জিও টিউব ব্যাগ ফেলে ভাঙ্গন রোধে চেষ্টা করে চলেছেন। ভিটা মাটি হারিয়ে বাধে কিংবা অন্যের জমিতে আশ্রয় নিয়েছেন অনেকে। উপজেলার ৭টি ইউনিয়নের মধ্যে তিস্তা ও ধরলা নদী বেষ্টিত ৪টি ইউনিয়ন। নদী খনন ও বেরী বাধ না থাকায় প্রতি বছর বর্ষা মৌসুমে নদীর ভাঙ্গন শুরু হয়। গত ১৪ দিনের ব্যবধানে ঘড়িয়াল ডাঙ্গা ও বিদ্যানন্দ ইউনিয়নের চর গমিয়াশাম, খিতাব খাঁ, নাখেন্দা,কিশামত নাখেন্দা, পাড়ামৌলা, রতি,রামহরি,ও চতুরা গ্রামে নদী গর্ভে বিলিন হয়েছে প্রায় পাঁচ শতাধিক পরিবারের ঘর-বাড়ি সহ আবাদি জমি। এছাড়া ও হুমকির মুখে রয়েছে বগুড়া পাড়া, চর খিতাব খাঁ, বুড়ির হাট বাজার,কালীর হাট, গাবুর হেলান,ডাংড়ার হাট ও বিদ্যান্দ বাজার। মেদিনীপুর আশ্রায়ন প্রকল্পের বাসিন্দা জমিলা খাতুন (৫০) মনজু মিঞা (৪০) বলেন জরুরি ভিত্তিতে নদী খনন ও বাধ না দিলে এই প্রকল্পের প্রায় ২৪/২৫টি ঘর নদীতে বিলিন হওয়ার সম্ভাবনা দেখা দিয়েছে। ঘড়িয়াল ডাঙ্গা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান অধ্যাপক রবীন্দ্রনাথ কর্মকার বলেন,আমার ইউনিয়নের ৪টি গ্রামের প্রায় ২ শতাধিক বাড়ি ঘর নদীতে বিলিন হয়েছে। ভাঙ্গন কবলিত পরিবার গুলোকে শুকনো খাবার ও নগদ ২ হাজার করে নগদ টাকা বিতরন করা হয়েছে। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নুরে তাসনিম বলেন, তিস্তায় ভাঙ্গন দেখা দিলে আমি জেলা প্রশাসক মহোদয়ের মাধ্যমে পানি উন্নয়ন বোর্ডকে অবহিত করলে তারা বিভিন্ন মাধ্যমে ভাঙ্গন প্রতিরোধে চেষ্টা করে যাচ্ছেন। কুড়িগ্রাম পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী আরিফুল ইসলাম জানান, ভাঙ্গন প্রতিরোধে আমরা তাৎক্ষনিক জিও ব্যাগ, জিও টিউব ব্যাগ ফেলে ভাঙ্গন রোধের চেষ্টা করছি। স্থায়ী সমাধানের জন্য সরকার একটি বড় প্রকল্প হাতে নিয়েছে, এটি অনুমোদন হলে নদী খনন করা হলে নদীর নব্যতা ফিরে আসলে আর ভাঙ্গন থাকবেনা বলে আশা করছি।


অন্যান্য সংবাদ
%d bloggers like this:
%d bloggers like this: