বুধবার, ১৯ জানুয়ারী ২০২২, ১২:৪৪ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতার সংস্কৃতি গড়ে তোলার জন্য ডিসিদের প্রতি রাষ্ট্রপতির নির্দেশ হারিয়ে যাওয়া টাকা উদ্ধারের পর প্রকৃত মালিককে প্রদান ডিমলায় শিশু ধর্ষণের ঘটনায় গ্রেফতার ২ কুড়িগ্রামের সোনাভরি নদী থেকে অজ্ঞাত ব্যক্তির লাশ উদ্ধার কাপাসিয়ায় আদালতের নিষেধাজ্ঞা লঙ্ঘন! অভিনেত্রী শিমুকে খুন করেন স্বামী, লাশ গুম করে বাল্যবন্ধু জাকার্তা নয়, ইন্দোনেশিয়ার নতুন রাজধানী ‘নুসানতারা’ ‘উন্নয়ন প্রকল্পের তদারকিতে ডিসিরাও থাকবেন’ রুপগঞ্জ বাজার বণিক সমিতির সদস্যদের সাথে পুলিশ সুপারের মতবিনিময় শিবগঞ্জে নবনিবার্চিত চেয়ারম্যানদের নিয়ে মাসিক সভা খুলনায় মাদক বিরোধী অভিযানে গ্রেফতার ৪ চাঁপাইনবাবগঞ্জে মাদকসহ গ্রেপ্তার ১ শিবগঞ্জের বিনোদপুর কলেজে নবীনবরণ অনুষ্ঠিত শেরপুরে বৃদ্ধার মাথা ফাটানো সেই নাতনি-পুত্রবধূ গ্রেফতার হিলিতে শীতের তীব্রতা বেড়েছে বইছে হিমেল বাতাস মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের মর্যাদাপূর্ণ জীবন নিশ্চিত করুন : ডিসিদের প্রতি প্রধানমন্ত্রী অনুমতি না নিয়ে নিউজ করলে খুব খারাপ হবে! শ্রীবরদীতে বিনামূল্যে চক্ষু সেবা ক্যাম্প জামালপুরে হেরোইনসহ দুই মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার ফেরি স্বল্পতার কারণে যানবাহনের দীর্ঘ সারি

ছাগলনাইয়ায় তুচ্ছ ঘটনায় স্ত্রীকে গরম পানিতে ঝলসে দিল পাষন্ড স্বামী

ফেনী প্রতিনিধি:
প্রকাশের সময় : বুধবার, ১৯ জানুয়ারী ২০২২, ১২:৪৪ পূর্বাহ্ন

লুঙ্গি শুকায়নি বলে গৃহবধূ আকলিমা (২৭) কে গরম পানিতে ঝলসে দিয়েছে পাষন্ড স্বামী মো. মোমিন। একইসঙ্গে খুন্তি দিয়ে নির্যাতন করে রক্তাক্ত করে তাকে ঘরবন্দি করে রাখা হয়েছে। ঘটনাটি ঘটেছে ফেনীর ছাগলনাইয়ার উপজেলার মহামায়া ইউনিয়নের এন্না পাথর গ্রামে । নির্যাতিত গৃহবধূর ভাই আবু মিয়া জানান, প্রায় ১২ বছর আগে আমজাদহাট ইউনিয়নের হার্ডি পুষ্করণী গ্রামের মৃত আবদুল হাইয়ের মেয়ে আকলিমা আক্তারের সঙ্গে পাশের মহামায়া ইউনিয়নের এন্না পাথর গ্রামের মোহাম্মদ নবী মিয়ার ছেলে মো. মোমিনের বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকে বিভিন্ন সময়ে নানা অজুহাতে মোমিন আকলিমাকে নির্যাতন করে আসছিলেন বলে অভিযোগ করেন আকলিমার ভাই আবু মিয়া।

আবু মিয়া বলেন, গত ৪ দিন আগে আকলিমাকে একটি লুঙ্গি ধুতে দিয়েছিল তার স্বামী মোমিন। লুঙ্গি শুকায় নাই কেন এ কারণে তাকে খুন্তি দিয়ে মারধর করে রক্তাক্ত করে মোমিন এবং গরম পানিতে তা হাত-পা সহ বিভিন্ন জায়গায় ঝলসে দেন। নির্যাতন সইতে না পেরে আকলিমা স্বামীকে বলে, আমাকে আর মারিয়েন না। ভালো না লাগলে আমারে ছেড়ে দেন। মোমিন কাজে যাওয়ার পর গোপনে আকলিমা বাপের বাড়িতে আসার চেষ্টা করে। এ সময় মোমিন এলাকার লোক লাগিয়ে তাকে ধরে ফেলে। পরে এক বাড়িতে আশ্রয় নিলে স্থানীয় ওয়ার্ড মেম্বারের নেতৃত্বে মোমিন তাকে বাড়িতে নিয়ে যায়।

আবু মিয়া আরও বলেন, আমি মহামায়া ইউপি চেয়ারম্যানের গরীব শাহ’র কাছে গিয়েছিলাম। চেয়ারম্যান ওয়ার্ড মেম্বার ফরিদ কে ফোন দিয়েছেন আকলিমাকে আমাদের বাড়িতে নিয়ে যেতে। ফরিদ মেম্বার আমাকে বলেছেন, ঘটনা ঠান্ডা হোক। তারপর দিব। তখন আমি বললাম, এ পর্যন্ত পঞ্চাশ দফা বৈঠক করছেন কিন্তু বিচার পাইলাম না।

আবু বলেন, এভাবে প্রতিনিয়ত আকলিমাকে নির্যাতিত করে যাচ্ছে মোমিন। এর আগে গত রোজার সময় বোনের বাড়িতে বেড়াতে যাওয়ার কারণে তাকে ইট দিয়ে মেরে মাথা ফাটিয়ে দেন। মোমিন এই বলে হুমকি দেয়, কোনো আত্মীয় স্বজনের বাড়িতে গেল তোকে তালাক দিবে। এর আগেও আকলিমাকে মেরে তার দুটি হাত ভেঙে ফেলে। আমি আমাদের বাড়িতে এনে দু মাস চিকিৎসা করেছি।

বিষয়টি নিয়ে মহামায়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান গরীর হোসেন বাদশার কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমি স্থানীয় মেম্বারকে বলেছি এটার সমাধান করার জন্য। এ ব্যাপারে মামলার প্রস্তুতি চলছে।


অন্যান্য সংবাদ
%d bloggers like this:
%d bloggers like this: