শুক্রবার, ২১ জানুয়ারী ২০২২, ০১:৪৬ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
ঘানায় ভয়াবহ বিস্ফোরনে নিহত ১৭ দুই সপ্তাহের জন্য সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ: স্বাস্থ্যমন্ত্রী বিরামপুরে মাদক মামলায় নবনির্বাচিত ইউপি সদস্য গ্রেফতার দাঁড়িয়ে থাকা ট্রলিতে ধাক্কা লেগে মোটরসাইকেল আরোহী নিহত নীলফামারীতে সড়ক দূর্ঘটনায় নারী শ্রমিক নিহত পটুয়াখালীতে আনসার-ভিডিপি সদস্যদের বাই-সাইকেল বিতরন গৌরীপুরে বিধু ভূষণ দাস স্মরনে আওয়ামী লীগের শোকসভা অনুষ্ঠিত ব্যাংকের সর্বনিম্ন বেতন নির্ধারণ করে সার্কুলার জারি ইভ্যালি ইস্যুঃ হাইকোর্টে তাহসানের আগাম জামিন মানিকগঞ্জে বড়ভাইকে হত্যার দায়ে ছোট ভাইয়ের মৃত্যুদন্ডাদেশ ফেনীতে প্রতারণায় সহায়তার অভিযোগে ৩ জনের কারাদন্ড জোর করে ওষুধ খাইয়ে গর্ভের সন্তান নষ্ট, আদালতে স্বীকারোক্তি মেহেরপুরে সাজাপ্রাপ্ত দুই পলাতক আসামি আটক এখন থেকে রাতেও নৌযান চলবে ‘বঙ্গবন্ধু মোংলা-ঘাষিয়াখালী ক্যানেলে’ মেসিকে বাদ দিয়েই আর্জেন্টিনা দল ঘোষণা আফগানিস্তানে চাকরি হারিয়েছে পাঁচ লাখের বেশি মানুষ আইপি টিভি-ইউটিউবে সংবাদ প্রচার নীতিমালা বিরোধী: তথ্যমন্ত্রী শেরপুরে রাস্তার পাশে বীর মুক্তিযোদ্ধার লাশ! পটুয়াখালীর দুমকিতে মসজিদ নির্মাণ কাজের উদ্বোধন বোনকে উত্যক্তের প্রতিবাদ করায়, ভাইয়ের পা ভেঙে দিল বখাটে

গাইবান্ধায় এক বছরে ২৪৫ জন নারী-শিশু ধর্ষণের শিকার

গাইবান্ধা প্রতিনিধি
প্রকাশের সময় : শুক্রবার, ২১ জানুয়ারী ২০২২, ০১:৪৬ অপরাহ্ন

গাইবান্ধায় গত এক বছরে ২৪৫ জন নারী ও শিশু ধর্ষণের শিকার হয়েছে। ২০২০ সালে এই সংখ্যা ছিল ২১৮ জন। সচেতন নাগরিকগণ মনে করেন, বিচারহীনতার সংস্কৃতি, পর্নোগ্রাফি, অপ্রাপ্তবয়স্ক ছেলে-মেয়েদের হাতে স্মার্টফোন, ইন্টারনেটের অবাধ ব্যবহারের ফলে ধর্ষণের ঘটনা বাড়ছে। অভিভাবকদের অসচেতনতাকেও দায়ী করছেন অনেকেই ।

এছাড়াও প্রতিশোধ স্পৃহা, অসৎ উদ্দেশ্য হাসিলের জন্য এসব ঘটনার ঘটছে বলেও অভিযোগ রয়েছে। শুধু আইনের ব্যবহার করেই এই সমস্যার সমাধান সম্ভব নয় বলছে পুলিশ ও বিশেষজ্ঞরা।

গাইবান্ধা জেনারেল হাসপাতালসহ সাত উপজেলার স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের তথ্য অনুযায়ী ২০২১ সালের ১ জানুয়ারি থেকে ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত ২৪৫ জন নারী ও শিশু ধর্ষণের শিকার হয়। তাদের মধ্যে বয়স ৩-১০ বছর বয়সের ১৪ জন, ১১-১৭ বছর বয়সের ১৫৫ জন এবং ১৯ বছরের উর্ধ্বে ৭৬ জন। সব থেকে বেশি নির্যাতনের শিকার হয়েছে ১১-১৮ বছরের শিশু ও কিশোরী। নারী, শিশু ও মহিলা বিষয়ক সংগঠনগুলোর মতে বিচারহীনতার সংস্কৃতি, অশ্লীলতা, পর্নোগ্রাফি, নারীর প্রতি অবমূল্যায়নের কারণে সমাজে ধর্ষণ বাড়ছে। সমাজে নারীদের কেবল ভোগ্যসামগ্রী মনে করা হয়। নারীদের নিয়ে অশ্লীল ব্যঙ্গ করা হয়। আইনের ফাঁক-ফোকর দিয়ে প্রকৃত অপরাধীরা পার পেয়ে যায়।

অপরাধীদের যথাযথ শাস্তি নিশ্চিত না হওয়ার কারণেও ধর্ষকের সংখ্যা বাড়ছে। অপরাধীদের সঠিক বিচার নিশ্চিত করা হলে সমাজ থেকে ধর্ষণ কমিয়ে আনা সম্ভব হবে বলে মনে করেন তারা। শিক্ষা ও গবেষণা সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা মনে করেন, ব্যক্তি মানসিকতার বিকৃতি, পারিবারিক শিক্ষার অভাব, বিকৃত পর্নোগ্রাফির সহজলভ্যতা এবং আইনের শাসনের সঠিকভাবে প্রয়োগ না হওয়ায় সমাজে অপরাধ বাড়ছে। তবে এক্ষেত্রে অভিভাবকদের অসচেতনতা দায়ী। এছাড়া সহকর্মী, বন্ধু-বান্ধব, আত্মীয়-স্বজনকে ফাঁসিয়ে অর্থ হাতিয়ে নেওয়ার আকাক্সক্ষা থেকেও সমাজে ধর্ষণের মতো ঘটনা ঘটছে।

শুধু তাই নয়, প্রতিশোধ নেওয়া কারও কারও বিরুদ্ধে ধর্ষণের মতো মিথ্যে অভিযোগ তোলা হয়। মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের ওয়ান স্টপ ক্রাইসিস (ওসিসি) প্রোগ্রাম অফিসার রুহুল আমিন ঢাকা পোস্টকে বলেন, উঠতি বয়সের ছেলে-মেয়েদের প্রেমের সম্পর্কের জেরেই বেশির ভাগ ধর্ষণের ঘটনা ঘটছে। এছাড়া প্রতিশোধ, ক্ষোভের বশবর্তী অথবা কাউকে ফাঁসাতেও অনেক সময় ধর্ষণের ঘটনা ঘটে।

নির্যাতিতদের দ্রুত চিকিৎসা, আইনি সেবাসহ সব ধরনের সহযোগিতা পেতে দফতরগুলোর সঙ্গে সমন্বয় করে থাকে ওসিসি। নারীমুক্তি কেন্দ্রের সাধারণ সম্পাদক নীলুফার ইয়াসমিন শিল্পী বলেন, অপরাধীদের সঠিক বিচার ও কঠিন শাস্তি না হওয়ার কারণেই সামজিক অপরাধ বাড়ছে। অপরাধ করার পরও অপরাধীদের যখন দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি হয় না তখন অন্যরাও অপরাধ করার সাহস পায়। ফলে দিন দিন ধর্ষণের ঘটনা বৃদ্ধি পাচ্ছে। গাইবান্ধা জেলা বার অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট সিরাজুল ইসলাম বাবু বলেন, শুধু আইন করে সমাজ থেকে ধর্ষণ নির্ম‚ল কিংবা কমিয়ে আনা সম্ভব নয়। এজন্য প্রয়োজন পারিবারিক ও সামাজিক সচেতনতা, নৈতিকতা ও মূল্যবোধ।

একদিকে আইনের যথাযথ প্রয়োগ থাকতে হবে অন্যদিকে জনসচেতনতা সৃষ্টি করতে হবে। তবেই ধর্ষণের ঘটনা রোধ করা সম্ভব। পুলিশ সুপার তৌহিদুল ইসলাম বলেন, ধর্ষণ নির্ম‚ল কিংবা কমিয়ে আনতে সচেতনতার কোনো বিকল্প নেই। পুলিশের পক্ষ থেকে নানাভাবে সচেতনতা বিষয়ক কার্যক্রম চলমান রয়েছে।

তিনি আরও বলেন, সাম্প্রতিক সময়ে করোনা মহামারির কারণে আমরা সবাই আবদ্ধ অবস্থায় আছি। ফলে কিশোর-কিশোরীরা সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে বেশি সময় ব্যয় করছে। এতে করে তারা বেশির ভাগ সময়ই জেনে-না জেনে, বুঝে-না বুঝে সম্পর্কে জড়িয়ে পড়ছে। এর ফলে ধর্ষণের মতো ঘটনা ঘটছে। সমাজ থেকে ধর্ষণ নির্ম‚ল কিংবা কমিয়ে আনতে পুলিশের পাশাপাশি সচেতন মহল, অবিভাবক ও শিক্ষকদের সম্মিলিতভাবে কাজ করার আহ্বান জানান তিনি।

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 


অন্যান্য সংবাদ
%d bloggers like this:
%d bloggers like this: