বৃহস্পতিবার, ০২ ডিসেম্বর ২০২১, ০৬:৩৩ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
মানিকগঞ্জে পুলিশ সুপারের সাথে বিভিন্ন স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের মতবিনিময় সভা দেড়বছর পর যাত্রা করলো বেনাপোল এক্সপ্রেস ক্যামব্রিয়ানের কোটি কোটি টাকা রাজস্ব ফাঁকি কৃষি জমি নষ্ট করে বালু ভরাট চলমান উন্নয়নকে প্রশ্নের মুখে শিবপুরে দরিদ্র কৃষকের স্বপ্ন ভেঙে দিয়েছে দুর্বৃত্তরা লেডি বাইকার রিয়াকে আগাম জামিন দিয়েছেন হাইকোর্ট দশ বছরে টেকসই উন্নয়নের লক্ষ্যমাত্রা অর্জিত হবে: প্রধানমন্ত্রী ‘অতিশয় বৃহৎ সংগ্রামের’ জন্য প্রস্তুত হতে বললেন কিম এবার প্রতিবেশী ভারতে ‘ওমিক্রন’ শনাক্ত মিয়ানমারে সেনাবাহিনীর হামলায় পালাচ্ছে হাজার হাজার বাসিন্দা আগামী তিন দিন বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে- আবহাওয়া অধিদপ্তর কমলো এলপি গ্যাসের দাম অভিবাসীর সংখ্যায় বিশ্বে বাংলাদেশ ষষ্ঠ চাঁপাইনবাবগঞ্জে তথ্য অধিকারের গুরুত্ব নিয়ে সংলাপ অনুষ্ঠিত অন্ত:সত্তা স্ত্রীকে হত্যার দায়ে স্বামীর মৃত্যুদন্ড বিশ্বকাপ জয়ীর নেতৃত্বে যুব বিশ্বকাপে খেলবে বাংলাদেশ বহুতল ভবন থেকে পড়ে নির্মাণ শ্রমিকের মুত্যু যশোরে বোর্ডে এইচএসসি পরীক্ষার্থী ১ লাখ ৩১ হাজার যশোরে বাস ও মোটরসাইকেল সংঘর্ষে নিহত ১, আহত ১ আফ্রিকাফেরত হোটেল থেকে বেরোলে মালিককে জরিমানা

খালা নয় বাবার সঙ্গেই থাকতে চায় আদাবরের সেই ৩ বোন

রিপোর্টারের নাম
প্রকাশের সময় : বৃহস্পতিবার, ০২ ডিসেম্বর ২০২১, ০৬:৩৩ অপরাহ্ন
খালা নয় বাবার সঙ্গেই থাকতে চায় আদাবরের সেই ৩ বোন

রাজধানীর আদাবর থেকে ‘নিখোঁজ’ হওয়া তিন বোন টিকটকে আসক্ত ছিল না বলে জানিয়েছে পুলিশ। ওই তিন বোনকে যশোর থেকে উদ্ধারের পর এ তথ্য জানিয়েছেন ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) তেজগাঁও বিভাগের উপ-কমিশনার (ডিসি) বিপ্লব কুমার সরকার।

এ বিষয়ে শনিবার (২০ নভেম্বর) দুপুরে নিজ কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলন করেন তিনি। উদ্ধার হওয়া তিন বোন হলো- রোকেয়া (১৮), জয়নব আরা (১৭) ও খাদিজা আরা (১৬)।

বিপ্লব কুমার সরকার বলেন, ২০১২ সালে তিন বোনের বাবা-মায়ের বিচ্ছেদ হয়। এরপর থেকে তারা মায়ের সঙ্গে থাকত। পরে তাদের মা ক্যানসারে মারা যান। তখন থেকে তারা দুই খালার সঙ্গে থাকত। কিন্তু বাবার সঙ্গে যোগাযোগ করতে পারত না। বিভিন্ন সময়ে খালাদের নেতিবাচক কর্মকাণ্ডে তাদের মধ্যে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়। সেই ক্ষোভের কারণে তারা অসুস্থ বাবার কাছে চলে যায়।

সংবাদ সম্মেলনে উপ-কমিশনার বলেন, তিন বোন পুলিশকে জানিয়েছে, এখন থেকে তারা বাবার কাছেই থাকতে চায়, খালার সঙ্গে নয়। কারণ হিসেবে বলেছে, দুই খালার কাছে তারা যেমন আচরণ আশা করেছিল, তেমনটি পায়নি। তাই তারা বাবার কাছে চলে যায়।

তিনি বলেন, তাদের বাবা একজন স্কুলশিক্ষক। দীর্ঘ আট থেকে নয় বছর পর তিন বোন তাদের বাবার সঙ্গে দেখা করেছে। এর আগে মাঝেমধ্যে দাদির মোবাইল নম্বরে কল করে বাবার সঙ্গে কথা বলত। আর যশোরে বাবার কাছে যাওয়ার জন্য দাদি তাদের বিকাশের মাধ্যমে দুই হাজার টাকা পাঠান। পরে ১৮ নভেম্বর সকালে আদাবরের বাসা থেকে বের হয়ে তারা যশোরের উদ্দেশে রওনা দেয়। এরপর বাসা থেকে বের হয়ে তারা গাবতলীতে জননী পরিবহনের একটি বাসে করে যশোর চলে যায়। সেখান থেকে হামিদপুরে তাদের বাবার বাসায় পৌঁছায়।

তিন বোনকে নিয়ে পরবর্তী আইনি প্রক্রিয়া কী হবে জানতে চাইলে বিপ্লব কুমার সরকার বলেন, তাদের আদালতে সোপর্দ করা হবে। আদালতে তারা নিজেদের বক্তব্য তুলে ধরবে। রোববার দুই বোনের এসএসসি পরীক্ষা রয়েছে, তারা পরীক্ষায় অংশ নিতে চায়। আদালত এ বিষয়ে পরে সিদ্ধান্ত নেবেন। আদালত যা বলবেন আমরা সে অনুযায়ী কাজ করব। তাদের সব ধরনের নিরাপত্তা ও সহযোগিতা করা হবে।

এদিকে ওই তিন বোন টিকটকে আসক্তির কারণে ঘর ছাড়ে- খালার এমন অভিযোগের বিষয়ে তিনি বলেন, আমরা তাদের কাছে কোনো মোবাইল ফোন পাইনি। গণমাধ্যমে তাদের খালার বিভিন্ন অভিযোগের সত্যতা এ পর্যন্ত পাওয়া যায়নি।

প্রসঙ্গত, গত বৃহস্পতিবার (১৮ নভেম্বর) আদাবরের শেখের টেকের খালার বাসা থেকে বেরিয়ে যায় ওই তিন বোন। এ ঘটনায় তাদের খালা সাজেদা নওরীন আদাবর থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেন। পরে শুক্রবার র‍্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব) ওই তিন বোনের অবস্থান শনাক্ত করে।


অন্যান্য সংবাদ
%d bloggers like this:
%d bloggers like this: