রবিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৭:০৪ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
সরকার খালেদা জিয়াকে ভয় পায় : মির্জা ফখরুল দেশে করোনায় শনাক্ত নামল ছয় শতাংশের নিচে সামঞ্জস্যপূর্ণ সাজার চর্চা নিশ্চিতে নীতিমালা প্রণয়নে হাইকোর্টের রুল নিজ চার সন্তানকে বিষ খাইয়ে, আগুন পুড়ে আত্মহত্যাচেষ্টা মায়ের! মামলায় ‘পলাতক’, অথচ স্কুলের বেতন তুলছেন শিক্ষক রাণীশংকৈলে বীরঙ্গনা ঐক্য সংঘের সমাবেশ ইঁদুর মারার বিষকে চকলেট ভেবে খেয়ে শিশুর প্রাণ গেল বিয়ে বাড়িতে ছবি তোলাকে কেন্দ্র করে দুই গ্রামবাসীর মধ্যে সংঘর্ষে আহত ২০ কালকিনিতে প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে বেঁড়া দিয়ে চাষাবাদ লোকালয়ে আসা হরিণ বনে ফেরত বাংলাদেশ চাইলে নির্বাচন প্রক্রিয়ায় সহযোগিতা করবে জাতিসংঘ আগামীকাল দেবীগঞ্জ পৌরসভা নির্বাচন, ঝুঁকিতে ৬ কেন্দ্র আত্রাইয়ে আশ্রয়ন প্রকল্পের নির্মিত হলো দৃষ্টিনন্দন শিশুপার্ক ভোলায় গ্রাহকদের হাজার কোটি টাকা নিয়ে উধাও তত্ত্বাবধায়ক সরকারের স্বপ্ন দেখে লাভ নেই: তথ্য প্রতিমন্ত্রী অবশেষে তামিম মাঠে ফিরে এলেন ইভ্যালি নিয়ে যা বললেন: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ম্যাচ জিতলেই আড়াই লাখ টাকা পুরস্কার ৫৯টি আইপিটিভি বন্ধ করে দিলো বিটিআরসি ‘বিদেশি ফুটবলার’ আনায় জেমির ওপর ক্ষুব্ধ সালাউদ্দিন

কোরিয়ায় পুরনো ফ্রিজের ভিতর মিলল লাখ লাখ টাকা

রিপোর্টারের নাম
প্রকাশের সময় : রবিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৭:০৪ অপরাহ্ন
কোরিয়ায় পুরনো ফ্রিজের ভিতর মিলল লাখ লাখ টাকা

অনলাইনে পুরনো ফ্রিজ কেনেন এক ব্যক্তি। বাড়ি এনে ফ্রিজ খুলতেই চক্ষু চড়কগাছ হবার যোগার। ফ্রিজের ভিতর রাখা আছে লাখ লাখ টাকা। ঘটনাটি দক্ষিণ কোরিয়ার। তবে সেই অর্থ না রেখে পুলিশের কাছে হস্তান্তর করেছেন ওই ব্যক্তি।

ফ্রিজের ক্রেতা ওই ব্যক্তি দক্ষিণ কোরিয়ার জেজু আইল্যান্ডের বাসিন্দা। তিনি গত ৬ আগস্ট অনলাইন থেকে একটি পুরনো ডিপ ফ্রিজ কিনেন। বাসায় আনার পর ফ্রিজের ভেতরের অংশ পরিষ্কার করছিলেন তিনি।

পরিষ্কার করার এক পর্যায়ে ফ্রিজের তলায় টেপ দিয়ে মুড়িয়ে লুকিয়ে রাখা টাকার বান্ডিল দেখতে পান। সেই টাকার পরিমাণ দক্ষিণ কোরিয়ার মুদ্রায় ১ কোটি ১০ লাখ ওন, যা বাংলাদেশি মুদ্রায় প্রায় ৮ লাখ টাকা। সেখানে ছিল প্রত্যেকটি ৫০ হাজার ওনের কোরিয়ান নোট। টাকাগুলো পাওয়ার পর পুলিশকে খবর দেন তিনি। পরে পুলিশের কাছে সব অর্থ তুলে দেন।

পুরনো ফ্রিজের ভেতর এত টাকা কীভাবে এলো তা খতিয়ে দেখছে পুলিশ। তদন্ত কর্মকর্তারা বলেছেন, ফ্রিজটি অনলাইনে যিনি বিক্রি করেছেন তাকে শনাক্ত করার কাজ চলছে। এছাড়া ফ্রিজ পরিবহন ও হস্তান্তরে যুক্ত ব্যক্তিদের সঙ্গেও কথা বলছেন তারা।

দক্ষিণ কোরিয়ার লস্ট অ্যান্ড ফাউন্ড অ্যাক্ট অনুযায়ী, ফ্রিজে পাওয়া অর্থের প্রকৃত মালিক পাওয়া না গেলেও যিনি ফ্রিজটি কিনেছেন, তিনি ওই অর্থ পাবেন। তবে এই অর্থের সঙ্গে কোনো অপরাধের ঘটনা জড়িত থাকলে তা সরকারি কোষাগারে জমা হবে।

এদিকে ব্যাংকে সুদের হার কম হওয়ায় দক্ষিণ কোরিয়ায় ফ্রিজে অর্থ রাখার প্রবণতা দেখা যাচ্ছে বলে কোরিয়ান সংবাদ মাধ্যমগুলো জানিয়েছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

অন্যান্য সংবাদ