শুক্রবার, ২২ অক্টোবর ২০২১, ১২:০৫ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
অসুস্থ গাফফার চৌধুরীকে ফোন করে খোঁজ-খবর নিলেন রাষ্ট্রপতি স্কটল্যান্ড হারলে গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন বাংলাদেশ কক্ষপথে স্যাটেলাইট স্থাপনে ব্যর্থ হয়েছে দ. কোরিয়া স্কুল শিক্ষার্থীদের টিকা এ মাসেই: স্বাস্থ্যমন্ত্রী বন্ধ হচ্ছে না বৈধ-অবৈধ মোবাইল ফোন মালয়েশিয়ায় বাংলাদেশিসহ ২১৩ অভিবাসী আটক হিন্দুদের ওপর হামলা দেশের চেতনার বেদীমূলে হামলা : তথ্যমন্ত্রী জানুয়ারিতে বাড়তে পারে ক্লাসের সংখ্যা: শিক্ষামন্ত্রী ব্যাট-বলের ভারসাম্যে খুশী মাহমুদুল্লাহ ধামইরহাটে উপজেলা আওয়ামীলীগের সম্মেলনে পুনরায় দেলদার হোসেন সভাপতি ও সম্পাদক শহীদুল ইসলাম বিশাল জয়ে বিশ্বকাপের মূল পর্বে টাইগাররা ‘বিএনপি নেতারা রাজনীতি নয়, অফিসিয়াল দায়িত্ব পালন করছেন’ গোয়ালন্দ উপজেলা বিএনপির আহবায়ক কমিটি গঠন মালিঙ্গাকে ছাড়িয়ে আফ্রিদিকে ধরে ফেললেন সাকিব রাডার কিনতে ফ্রান্সের সঙ্গে চুক্তি সই করোনায় ২৪ ঘণ্টায় বেড়েছে মৃত্যু, কমেছে শনাক্ত ঠাকুরগাঁওয়ে বাল্যবিবাহের অপরাধে ইউপি চেয়ারম্যান ও কাজি সহ আটক ০৯ কখনও বলিনি বিশ্বকাপ জিতে বিয়ে করব: রশিদ খান নারী ও শিশু উন্নয়ন বিষয়ক সাংবাদিক প্রশিক্ষণ কর্মশালার সমাপন ধামইরহাটে বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুস সামাদ মন্ডলকে রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় দাফন

একদিনে সর্বোচ্চ শনাক্ত ১৬ হাজারের বেশি, মৃত্যু ২৩৭

রিপোর্টারের নাম
প্রকাশের সময় : শুক্রবার, ২২ অক্টোবর ২০২১, ১২:০৫ অপরাহ্ন
একদিনে সর্বোচ্চ শনাক্ত ১৬ হাজারের বেশি, মৃত্যু ২৩৭

গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে রেকর্ড ১৬ হাজার ২৩০ করোনা রোগী শনাক্ত হয়েছে। এর আগে সর্বোচ্চ শনাক্ত হয়েছিল ২৬ জুলাই, ১৫ হাজার ১৯২ জন। এ নিয়ে শনাক্তের মোট সংখ্যা দাঁড়াল ১২ লাখ ১০ হাজার ৯৮২ জন।

আর, গত ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু হয়েছে ২৩৭ জনের। গতকাল মৃত্যু হয় ২৫৮ জনের, যা দেশের ইতিহাসে সর্বোচ্চ। এতে মোট মৃতের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ২০ হাজার ১৬ জন। আজ আগের দিনের তুলনায় মৃত্যু কমলেও পরীক্ষার বিপরীতে শনাক্তের হার বেড়েছে।

২৪ ঘণ্টায় রেকর্ড নমুনা পরীক্ষা হয়েছে ৫৩ হাজার ৮৭৭। পরীক্ষার বিপরীতে শনাক্তের হার ৩০ দশমিক ১২ শতাংশ। গতকাল করোনায় মৃত্যু হয়েছিল ২৫৮ জনের। ওই সময় রোগী শনাক্ত হয়েছিল ১৪ হাজার ৯২৫ জন। রোগী শনাক্তের হার ছিল ২৮ দশমিক ৪৪ শতাংশ।
গত ২৪ ঘন্টায় সুস্থ হয়েছেন ১৩ হাজার ৪৭০ জন। এ পর্যন্ত মোট সুস্থ ১০ লাখ ৩৫ হাজার ৮৮৪ জন।

গত ২৪ ঘণ্টায় সবচেয়ে বেশি ৭০ জনের মৃত্যু হয়েছে ঢাকা বিভাগে। চট্টগ্রাম বিভাগে মারা গেছেন ৬২ জন, খুলনা বিভাগে মৃত্যু হয়েছে ৩৪ জনের। রাজশাহীতে ১৮ ও রংপুরে ১৬ জনের মৃত্যু হয়েছে। বাকিরা অন্যান্য বিভাগের।বুধবার বিকালে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এসব তথ্য জানানো হয়।

বাংলাদেশে করোনাভাইরাসের প্রথম সংক্রমণ ধরা পড়েছিল গত বছর ৮ মার্চ। প্রথম রোগী শনাক্তের ১০ দিন পর গত বছরের ১৮ মার্চ দেশে প্রথম মৃত্যুর তথ্য নিশ্চিত করে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। প্রথম মৃত্যুর আড়াই মাস পর গত বছরের ১০ জুন মৃতের সংখ্যা ১ হাজার ছাড়ায়। এরপর ৫ জুলাই ২ হাজার, ২৮ জুলাই ৩ হাজার, ২৫ অগাস্ট ৪ হাজার, ২২ সেপ্টেম্বর ৫ হাজার ছাড়ায় মৃতের সংখ্যা।

এরপর কমে আসে দৈনিক মৃত্যু। ৪ নভেম্বর ৬ হাজার, ১২ ডিসেম্বর ৭ হাজারের ঘর ছাড়ায় মৃত্যুর সংখ্যা। এ বছরের ২৩ জানুয়ারি ৮ হাজার এবং ৩১ মার্চ মোট মৃত্যুর সংখ্যা ৯ হাজার ছাড়ায়।

সংক্রমণের দ্বিতীয় ঢেউ শুরুর পর ১৫ দিনেই এক হাজার কোভিড-১৯ রোগীর মৃত্যু ঘটলে গত ১৫ এপ্রিল মৃতের সংখ্যা ১০ হাজার ছাড়িয়ে যায়। এর পরের এক হাজার মানুষের মৃত্যু ঘটাতে মাত্র দশ দিন সময় নেয় করোনাভাইরাস। মোট মৃতের সংখ্যা ১১ হাজার ছাড়িয়ে যায় ২৫ এপ্রিল।

তার ১৬ দিন পর ১১ মে করোনাভাইরাসে মৃত্যু ১২ হাজার ছাড়িয়ে যায়। তার এক মাস পর ১১ জুন তা ১৩ হাজার ছাড়িয়েছিল। এর ১৫ দিন পর ২৬ জুন এই সংখ্যা ১৪ হাজার ছাড়িয়ে যায়। ৪ জুলাই ১৫ হাজার ছাড়ায় মৃত্যু। মাত্র ছয় দিন পরে গত ৯ জুলাই মোট মৃত্যুর সংখ্যা ১৬ হাজার ছাড়ায়। গত ১৪ জুলাই এ সংখ্যা ১৭ হাজার ছাড়িয়ে যায়। এর পাঁচ দিনের মাথায় ১৯ জুলাই মৃত্যু ছাড়ায় ১৮ হাজার। এর পাঁচ দিন পর ২৪ জুলাই মৃত্যু ১৯ হাজার ছাড়ায়। আজ বুধবার ২৮ জুলাই মৃতের সংখ্যা ছাড়াল ২০ হাজার।

পরিস্থিতি উদ্বেগজনক হওয়ায় ২২ জুন থেকে ঢাকাকে সারা দেশ থেকে অনেকটা বিচ্ছিন্ন রাখার সিদ্ধান্ত নেয় সরকার। সেই প্রচেষ্টায় ঢাকার আশপাশের চারটি জেলাসহ মোট সাতটি জেলায় জরুরি সেবা ছাড়া সব ধরনের চলাচল ও কার্যক্রম ৩০ জুন মধ্যরাত পর্যন্ত বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছিল।

তবে এরপরো করোনা সংক্রমণ বাড়তে থাকায় ২৮ জুন থেকে সারা দেশে সব গণপরিবহন ও মার্কেট-শপিং মল বন্ধ করা হয়েছে। গত ১ জুলাই থেকে শুরু হয়েছে কঠোর লকডাউন, বন্ধ রয়েছে সব সরকারি-বেসরকারি অফিস। সর্বাত্মক লকডাউন ১৪ জুলাই পর্যন্ত বাড়ানো হয়। ঈদ উপলক্ষে ১৫ থেকে ২২ জুলাই পর্যন্ত লকডাউন শিথিলের ঘোষণা দেয় সরকার। ২৩ জুলাই শুরু হয় আবারো লকডাউন যা চলবে ৫ আগস্ট পর্যন্ত।


অন্যান্য সংবাদ
%d bloggers like this:
%d bloggers like this: