শনিবার, ১৬ অক্টোবর ২০২১, ১১:২১ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
একনজরে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের ১৬ দলের খেলোয়াড় তালিকা অবশেষে নগরীতে নামলো স্বস্তির বৃষ্টি সৌদি জোটের হামলা: ইয়েমেনে নিহত ১৬০ ডেঙ্গুতে চলতি বছর আক্রান্ত ২১ হাজার ২শ ছাড়াল প্রতিদিন টিকা পাবে ৪০ হাজার শিশু ডেঙ্গু আক্রান্ত ভারতের সাবেক প্রধানমন্ত্রী মার্কিন যুদ্ধজাহাজকে রাশিয়ার ধাওয়া টেকসই স্যানিটেশন লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে সমন্বিত প্রয়াসের আহ্বান ‘সরকার সবার জন্য নিরাপদ স্যানিটেশন নিশ্চিত করতে বদ্ধপরিকর’ ওমরাহ যাত্রীদের জন্য নতুন নির্দেশনা সাম্প্রদায়িক সংঘাতের চেষ্টায় আ.লীগের এজেন্টরা জড়িত: ফখরুল দ্রব্যমূল্য থেকে মানুষের চোখ সরাতেই কুমিল্লার ঘটনা: মান্না এই সরকারের অধীনে আর কোনো নির্বাচন নয়: সাকি প্রচণ্ড তাপে পুড়ছে দেশের ১৮ অঞ্চল সকালে দলের সঙ্গে যোগ দিলেন সাকিব রুহিয়া থানা বিএনপির মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত গোবিন্দগঞ্জে শহীদ মিনারের ভিত্তি প্রস্থর স্থাপন গাইবান্ধায় বিশ্ব খাদ্য দিবস পালিত অস্ত্রসহ একজনকে আটক করেছে র‌্যাব-৫ চাঁপাইনবাবগঞ্জে বিশ্ব খাদ্য দিবস পালিত

অজিদের বিপক্ষে ঐতিহাসিক সিরিজ জয় টাইগারদের

রিপোর্টারের নাম
প্রকাশের সময় : শনিবার, ১৬ অক্টোবর ২০২১, ১১:২১ অপরাহ্ন
অজিদের বিপক্ষে ঐতিহাসিক সিরিজ জয় টাইগারদের

শুরুর দুই ম্যাচে অজিদের অল্প রানে আটকে দিয়েছিলো বাংলাদেশ। পাঁচ ম্যাচের সিরিজের তৃতীয়টিতে বড় সংগ্রহ না পেলেও লড়াইয়ের আত্মবিশ্বাস ছিলো টাইগারদের। ওই আত্মবিশ্বাস ও অভিজ্ঞতা দিয়ে দারুণ বোলিং করেছেন সাকিব-মুস্তাফিজরা। জয় তুলে নিয়েছেন ১০ রানে। টানা তিন ম্যাচ জিতে অস্ট্রেলিয়া’র বিপক্ষে প্রথমবার ঘরে তুলেছে ঐতিহাসিক সিরিজ। নতুন লক্ষ্য তাদের হোয়াইটওয়াশ করা।

ঐতিহাসিক এই জয়ে বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের খেলোয়াড়, কোচ ও ম্যানেজারসহ সংশ্লিষ্ট সকলকে প্রাণঢালা অভিনন্দন জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

টস জিতে ব্যাট করে বাংলাদেশ ৯ উইকেট হারিয়ে তুলতে পারে ১২৭ রান। জবাব দিতে নেমে শুরুর ৮ রানে উইকেট হারালেও পরে ঘুরে দাঁড়ায় অজিরা। মিশেল মার্শ ও বেন ম্যাকডরমিট গড়েন ৬৩ রানের জুটি। ওই জুটি ভেঙে দলকে ম্যাচে ফেরান সাকিব আল হাসান।

শেষ ৩ ওভারে ৩৪ রান দরকার ছিলো অজিদের। এক প্রান্তে টিকে থেকে মার্শ অস্বস্তি দিয়ে যাচ্ছিলেন স্বাগতিকদের। তবে ১৮তম ওভারে এসেই তাকে তুলে নেন শরিফুল ইসলাম। মার্শ ৫১ রানে সাজঘরে ফিরিয়ে ম্যাচ পক্ষে নিয়ে আসেন পেসার শরিফুল ইসলাম। ওই ওভারে বাঁ-হাতি পেসার খান ১১ রান।

তবে ১৯তম ওভারে এসে ম্যাচের ভাগ্যে জমা শঙ্কা উড়িয়ে দেন মুস্তাফিজুর রহমান। স্লোয়ার-কাটারে নাস্তানাবুদ করেন ক্রিজে থাকা ড্যান ক্রিস্টিয়ানকে। ওই ওভারে তিনি দেন মাত্র ১ রান। শেষ ওভারে জয়ের জন্য ২২ দরকার ছিলো অস্ট্রেলিয়ার। অ্যালেক্স কেরি ক্রিজে থেকে নিতে পারেন ১১ রান। সিরিজ জয়ের উল্লাসে ভাসে টাইগাররা।

এর আগে ব্যাট হাতে বাংলাদেশের পক্ষে ৫৩ বলে ৫২ রানের কার্যকরি ইনিংস খেলেন অধিনায়ক মাহমুদুল্লাহ। সাকিব আল হাসান ২৬ রানের ভালো একটি ইনিংস খেলেন। স্বল্প কিন্তু লড়াইয়ের পুঁজি পেতে আফিফ হোসেন ১৯ ও নুরুল হাসান সোহান ১১ রান করেন।

অস্ট্রেলিয়া’র হয়ে অভিষেক টি-২০ ম্যাচে হ্যাটট্রিক তুলে নেন নাথান এলিস। এছাড়া জস হ্যাজলউড ও অ্যাডাম জাম্পা দুটি করে উইকেট নেন। টাইগারদের হয়ে শরিফুল দুটি ও সাকিব-নাসুম একটি করে উইকেট নেন। কোন উইকেট না পেলেও মুস্তাফিজুর রহমান ৪ ওভারে মাত্র ৯ রান খরচ করেন।

স্কোর কার্ড :
বাংলাদেশ ইনিংস :
মোহাম্মদ নাইম ক ওয়েড ব হ্যাজেলউড ১
সৌম্য সরকার এলবিডব্লু ব জাম্পা ২
সাকিব আল হাসান ক আগার ব জাম্পা ২৬
মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ বোল্ড ব এলিস ৫২
আফিফ হোসেন রান আউট (ক্যারি) ১৯
শামিম হোসেন ক ম্যাকডরমেট ব হ্যাজেলউড ৩
নুরুল হাসান রান আউট (হেনরিক্স) ১১
মাহেদি হাসান ক আগার ব এলিস ৬
মুস্তাফিজুর রহমান ক মার্শ ব এলিস ০
শরিফুল ইসলাম অপরাজিত ০
অতিরিক্ত (লে বা-৪, নো-১, ও-২) ৭
মোট (২০ ওভার, ৯ উইকেট) ১২৭
উইকেট পতন : ১/৩ (নাইম), ২/৩ (সৌম্য), ৩/৪৭ (সাকিব), ৪/৭৬ (আফিফ), ৫/৮১ (শামিম), ৬/৯৭ (নুরুল), ৭/১২৭ (মাহমুদুল্লাহ), ৮/১২৭ (মুস্তাফিজ), ৯/১২৭ (মাহেদি)।
অস্ট্রেলিয়া বোলিং :
অ্যাস্টন টার্নার : ১-০-২-০,
জশ হ্যাজেলউড : ৪-০-১৬-২,
এডাম জাম্পা : ৪-০-২৪-২ (ও-১),
অ্যাস্টন আগার : ৪-০-২৩-০ (ও-১),
নাথান এলিস : ৪-০-৩৪-৩,
মিচেল মার্শ : ১-০-১৫-০
ডেন ক্রিস্টিয়ান : ২-০-৯-০।
অস্ট্রেলিয়া ইনিংস :
বেন ম্যাকডারমট বোল্ড ব সাকিব ৩৫
ম্যাথু ওয়েড ক শরিফুল ব নাসুম ১
মিচেল মার্শ ক নাইম ব শরিফুল ৫১
মইসেস হেনরিক্স ক শামিম ব শরিফুল ২
অ্যালেক্স ক্যারি অপরাজিত ২০
ডেন ক্রিস্টিয়ান অপরাজিত ৭
অতিরিক্ত (নো ব-১) ১
মোট (২০ ওভার, ৪ উইকেট) ১১৭
উইকেট পতন : ১/৮ (ওয়েড), ২/৭১ (ম্যাকডারমট), ৩/৭৪ (হেনরিক্স), ৪/৯৪ (মার্শ)।
বাংলাদেশ বোলিং :
মাহেদি হাসান : ৩-০-২৯-০ (নো-১),
নাসুম আহমেদ : ৪-১-১৯-১,
সাকিব আল হাসান : ৪-০-২২-১,
মুস্তাফিজুর রহমান : ৪-০-৯-০,
শরিফুল ইসলাম : ৪-০-২৯-২,
সৌম্য সরকার : ১-০-৯-০।
ফল : বাংলাদেশ ১০ রানে জয়ী।
ম্যাচ সেরা : মাহমুদুল্লাহ (বাংলাদেশ)।
সিরিজ : পাঁচ ম্যাচের সিরিজে ৩-০ ব্যবধানে এগিয়ে গেল বাংলাদেশ।


অন্যান্য সংবাদ
%d bloggers like this:
%d bloggers like this: